সারা দিন কাজের পর বিছানায় গা এলিয়ে শান্তির ঘুম কে না চায়। তবে এর জন্য চাই তোশক, জাজিম বা বালিশের সঠিক যত্ন।
কখনো শরীরের ঘাম, জীবাণু মিশে একাকার হয়ে যায় বিছানায়। প্রতিদিন ব্যবহারের ফলে শক্ত হয়ে যায় মাথার নিচের বালিশটি। এমনকি পিঠের নিচের তোশক বা জাজিমও। বৃষ্টির দিনে বিছানা এমনিতেই একটু ভেজা ভেজা মনে হয়। কিন্তু এই আর্দ্রতা ক্ষতিকর।Decoration-320x170-2-2
  • রোদ উঠলেই বালিশটা রোদে দেওয়া উচিত। প্রতিদিন সম্ভব না হলেও অন্তত দু-তিন দিন পর পর।
  • বালিশ ভেজা রাখা যাবে না। এটা থেকে রোগজীবাণু ছড়ায়।
  • তোশক রোদে দিতে হবে ১৫ দিন বা এক মাস অন্তর।
  • জাজিম বারবার রোদে দেওয়া একটু ঝামেলা, সে জন্য রোদ ঝলমলে দিন দেখে জাজিম রোদে দিতে হবে।
  • রোদেলা দিনে বিছানায় যেন রোদ পড়ে, এ জন্য খোলা রাখতে হবে জানালা। সম্ভব হলে দরজাও। দু-তিন মাস পর পর তোশক, জাজিম উল্টিয়ে বিছাতে হবে।
  • দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে যখন রোদে দিলেও তোশক বা জাজিমের তুলা ফুলে না ওঠে, তখন পাল্টে ফেলতে হবে অথবা ভেঙে নতুন করে বানাতে হবে।
 নানা ধরন
জাজিম প্রধানত তিন মাপের হয়—ছয় বাই সাত ফুট, পাঁচ বাই সাত ফুট এবং চার বাই সাত ফুট।তোশকের পরিমাপ জাজিমের আকারেই হয়।
বিছানার ফোম চার মাপের পাওয়া যাবে। ৩৬ x ৭৮ ইঞ্চি, ৪৮ x ৭৮ ইঞ্চি, ৬০ x ৮৪ ইঞ্চি । বালিশের আকারেও রয়েছে ভিন্নতা। সবচেয়ে বেশি চলে ১৮ x ২৪ ইঞ্চি মাপের বালিশ।Decoration-320x170-1
যেখানে পাবেন
ঢাকার গ্রিন রোড, নিউমার্কেট, কারওয়ান বাজার সুপার মার্কেট, মৌচাক মার্কেটে পাওয়া যাবে জাজিম, তোশক ও বালিশ।
দরদাম
বাজার ঘুরে জানা গেল, বিছানার ফোম নানা ব্র্যান্ডের পাওয়া যায়। সম্ভাব্য দাম বড় পাঁচ হাজার টাকা, মাঝারি তিন হাজার ২০০ থেকে দুই হাজার ৬০০ টাকা। জাজিমের দাম এক হাজার